লুৎফুর রহমান হুজুর

লুৎফুর রহমান হুজুর (ডানে)
লুৎফুর রহমান হুজুর (ডানে)

ছোটবেলায় দেহাকৃতিগত কারণে কোক খাওয়ার ব্যাপারে আমার উপর কিছু টুকটাক নিষেধাজ্ঞা জারি ছিল। কোক থেকেই আকৃতি 😛 আর আকৃতি থেকে নিষেধাজ্ঞা 😛 এবং কোকই ছিল তখন আমার জীবনের অন্যতম আরাধ্য বস্তু

তো, একদিন লুৎফুর রহমান হুজুরকে পড়ার মাঝখানে জিজ্ঞাসা করেছিলাম, এমন কোন দুআ আছে কিনা যেটা পড়ে আল্লাহর কাছে যা চাইব সেটাই পাবো। হুজুর জবাবে বলেছিলেন, মন থেকে কিছু চাইলে সেই চাওয়া আল্লাহ ঠিকই পুরণ করেন।

স্বাভাবিক ভাবেই উত্তরটা আমার মনঃপুত হয়নি, কারণ আমি জানতাম আমি যেভাবে কোক চাই, তার চেয়ে বেশি “মন থেকে চাওয়া” আর সম্ভবই না। তাই সন্দিহান ভাবে জানতে চেয়েছিলাম যে হুজুর নিজে কখনও মন থেকে আল্লাহর কাছে চেয়ে কিছু পেয়েছেন কিনা। জবাবে হুজুর বলেছিলেন, তার সারা জীবনের ইচ্ছা ছিল যে তিনি একটা মাদ্রাসা আর একটা এতিমখানা বানাবেন। আল্লাহর কাছে তিনি তাই চেয়েছিলেন, এবং আল্লাহর তাকে সেসব দিয়েছেন। হুজুরের এতিমখানা আর মাদ্রাসার তখন একেবারেই শুরুর অবস্থা – জমি কিনে শুধু একটা ঘর তোলা হয়েছে, সেই ঘরের ছবিই তিনি তখন মানুষকে দেখান।

হুজুরের জবাব পেলেও আমি স্যাটিসফায়েড হতে পারলাম না, কারণ আমার কোকের সমস্যা মেটেনি। মন থেকে প্রাণ থেকে কোক চাই, কিন্তু চাওয়া মাত্র পাওয়া যায় না। হুজুরের প্রাপ্তি আর আমার অপ্রাপ্তিতে ভাবুক হয়ে একটা ব্যাপার তখন বুঝলাম, যে আল্লাহর কাছে চাওয়া পাওয়ার ব্যাপারটা ঠিক ততটা শর্ট টার্ম না যতটা আমি ভেবেছি।

আজকের সমাজে যে নাইনটি নাইন অচ্ছুৎ কমিউনিটি আছে, হুজুর সমাজ তার অন্যতম। শাহবাগী পাগল ছাগল, মিডিয়া আর তাদের হোমরা চোমরাদের তো বাদই দিলাম, জেনারেল পপুলেশানেও হুজুরদের ইমেজ ক্রাইসিস ক্রমবর্ধমান। কোথাকার কোন এক দাড়িটুপিঅলা রিটার্ডের বদলৌতে হুজুররা এখন #hojor, এবং সামগ্রিক ভাবে তামাশার পাত্র। এবং এর পেছনে যে এই সাবেকি হুজুর শ্রেণীর একটা বড়সড় অংশের ইসলাম সম্পর্কে অর্ধশিক্ষা এবং সর্বোপরি বাইগট্রির একটা ভূমিকা আছে, তা অস্বীকারের উপায় নেই।

কিন্তু আমাদের এই লুৎফুর রহমান হুজুর কোনদিন আমাদেরকে এমন কিছু শেখাননি যেটা আজ বড় হয়ে জানাশোনার পর ভুল প্রমাণিত হয়েছে। এ কথা আমাদের ফ্যামিলিতে হুজুরের জেষ্ঠ্য শিষ্য ১৬ বছর বয়সী এর বাবা Jami Mohammad Khan থেকে শুরু করে ৮ বছর বয়সী কনিষ্ঠ শিষ্য আরশান পর্যন্ত সত্যি।

সেই লুৎফুর রহমান হুজুরের মাদ্রাসা আর এতিমখানা আজ আকারে প্রকারে বড় হয়েছে। ছাত্রসংখ্যা বেড়েছে, শিক্ষকের সংখ্যাও বেড়েছে। লুৎফুর রহমান হুজুর হয়তো আল্লাহর কাছে ফেরার যাত্রায় অনেকটাই এগিয়ে গেছেন, হয়তো আমরা অনেকেই গেছি, কিন্তু আল্লাহর কাছে চেয়ে পাওয়া উপহার নিয়ে হুজুর ভালো আছেন, সুখে আছেন আলহামদুলিল্লাহ।

আল্লাহ লুৎফুর রহমান হুজুর ও তার মত সবাইকে দীর্ঘ, সুস্থ, নেক ও কর্মময় হায়াত দান করুন। আমিন।

😛 বাই দ্য ওয়ে আমাদের ফ্যামিলিতে লুৎফুর রহমান হুজুরের স্টুডেন্টরা হচ্ছেন জামি ভাই, Mithun Sultana , Mohammed Ashek Salam, Imon Sultana, Rashid Shahid, Eva Farzana, Tania Tasmia Emila, আমি নিজে, Sunny Isnain Rahman, Maisha Tasmia, Nafis Shadman Quader, Adham Rahman Tanvee, Wasif Khan, Ahnaf Rahman Nafi থেকে শুরু করে ফেসবুকে থাকার অনুপযুক্ত আমাদের সব কাচ্চাবাচ্চা যাদেরকে তিনি অসুস্থতার কারণে কন্টিনিউ করতে পারেননি, তাদেরকে টেকওভার করেছে ছবির বামদিকে থাকা তার দৌহিত্র ইব্রাহিম 🙂 মাশা’আল্লাহ (y)

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s